চবি সিন্ডিকেট থেকে মহিবুল আজিজের পদত্যাগ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী পর্ষদ সিন্ডিকেটের সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন অধ্যাপক ড. মহিবুল আজীজ।
মহিবুল আজীজ। ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী পর্ষদ সিন্ডিকেটের সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন অধ্যাপক ড. মহিবুল আজীজ।

আজ বুধবার দুপুর ৩টার দিকে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) বরাবর পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি।

বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছে অধ্যাপক ড. মহিবুল আজীজ। তবে এই বিষয়ে বিশদ কোনো মন্তব্য করতে তিনি রাজি হননি।

জানা যায়, ২০১৫ অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল কর্তৃক নির্বাচিত হন অধ্যাপক ড. মহীবুল আজিজ। মেয়াদোত্তীর্ণ হলেও নির্বাচন না হওয়ায় এতদিন তিনি এই পদে বহাল ছিলেন। যদিও সিন্ডিকেট নির্বাচন দিতে মহিবুল আজীজ প্রশাসনকে বেশ কয়েকবার চিঠি দিয়েছেন। সর্বশেষ গত বছরের ১০ আগস্ট নির্বাচন চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারের কাছে মহিবুল আজিজসহ চিঠি দেন চার সিন্ডিকেট সদস্য।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট ২৫ (বি) ধারা অনুযায়ী সিন্ডিকেটে ডিন, প্রভোস্ট, অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক ও প্রভাষক ক্যাটাগরির ছয়টি পদে শিক্ষকদের নির্বাচিত সদস্যরা প্রতিনিধিত্ব করেন বলে জানা যায়। বর্তমানে যার ছয়টি পদই শূন্য রয়েছে। এদের মধ্যে ডিন ও প্রভোস্ট প্রতিনিধি নির্বাচন না হওয়ায় পদ শূন্য। এ ছাড়া অধ্যাপক ক্যাটাগরির প্রতিনিধি অবসরে যাওয়া, সহযোগী অধ্যাপক ও প্রভাষক ক্যাটাগরির প্রতিনিধি পদোন্নতি পাওয়া ও সহকারী অধ্যাপক ক্যাটাগরির প্রতিনিধি শিক্ষাছুটিতে যাওয়ায় এই চারটি পদ কয়েক বছর ধরে শূন্য। সর্বশেষ এই চার ক্যাটাগরির নির্বাচন হয়েছিল ২০১৭ সালের ৩ ডিসেম্বর।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অভিযোগ, সিন্ডিকেটের পদগুলোতে নির্বাচন দিলে নিজের পছন্দসই মানুষকে সিন্ডিকেটে বসাতে পারবেন কিনা তা নিয়ে প্রশাসন সন্দিহান। তা করতে না পারলে নিজেদের ইচ্ছামতো সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নে বাধা আসতে পারে। এই কারণে দীর্ঘদিন ধরে সিন্ডিকেট নির্বাচন দেয়া হচ্ছে না।

Comments