ইউরোপ

জাতিসংঘ আফগানিস্তান-সিরিয়ার চেয়ে বেশি ত্রাণ দিয়েছে ইউক্রেনকে: রাশিয়া

ভ্যাসিলি বলেন, ‘বিস্ময়কর হলেও সত্য, ইউক্রেন এখনো দাতাদের মনোযোগ আকর্ষণের দিক দিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছে। শুধু এ বছরই জাতিসংঘ ইউক্রেনকে মানবিক সহায়তা দেওয়ার জন্য (সদস্য রাষ্ট্রদের) কাছ থেকে ১ দশমিক ৮৩ বিলিয়ন ডলারের বেশি তহবিল পেয়েছে।’
আফগান নাগরিকরা দীর্ঘদিন ধরে খাবার ও পানি সংকটে ভুগছে। ছবি: এএফপি
আফগান নাগরিকরা দীর্ঘদিন ধরে খাবার ও পানি সংকটে ভুগছে। ছবি: এএফপি

এ বছর ইউক্রেন জাতিসংঘের কাছ থেকে এখন পর্যন্ত ১ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার ত্রাণ পেয়েছে। অপরদিকে যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানকে সংস্থাটি দিয়েছে এর চেয়ে ১ বিলিয়ন ডলার কম। সিরিয়া পেয়েছে ৩০০ মিলিয়ন ডলার কম। 

আজ শুক্রবার রুশ রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম তাস জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়ার বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে।

ভ্যাসিলি বলেন, 'বিস্ময়কর হলেও সত্য, ইউক্রেন এখনো দাতাদের মনোযোগ আকর্ষণের দিক দিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছে। শুধু এ বছরই জাতিসংঘ ইউক্রেনকে মানবিক সহায়তা দেওয়ার জন্য (সদস্য রাষ্ট্রদের) কাছ থেকে ১ দশমিক ৮৩ বিলিয়ন ডলারের বেশি তহবিল পেয়েছে।'

তিনি জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিলের বিতর্কে অংশ নেওয়ার সময় এই কথা জানান। বিতর্কের বিষয়বস্তু 'মানবিক কাজে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া।'

গৃহযুদ্ধ বিধ্বস্ত সিরিয়া। ছবি: এএফপি
গৃহযুদ্ধ বিধ্বস্ত সিরিয়া। ছবি: এএফপি

রুশ কূটনীতিক আরও বলেন, 'এই পরিমাণটি দীর্ঘদিন ধরে দুর্ভোগের শিকার হতে থাকা সিরিয়ার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য চাওয়া তহবিলের চেয়ে ৩০০ মিলিয়ন বেশি। এটা আফগানিস্তানের সাধারণ মানুষের জন্য পাওয়া ত্রাণের চেয়ে ১ বিলিয়ন ডলার বেশি, যারা যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর কাছ থেকে হাতেকলমে "পরীক্ষামূলক গণতন্ত্রের" দীক্ষা পেয়েছে।'

'অনেকেই নিরুপায় হয়ে নিজেদের দেহের অঙ্গ বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে। কিছু পরিবার বাধ্য হয়েছে এক বা একাধিক সন্তানকে বিক্রি করে দিয়ে পরিবারের বাকি সদস্যদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করতে। আমাদের কিছু সহকর্মী এ বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চান না', যোগ করেন ভ্যাসিলি।

আফগান নাগরিকরা দীর্ঘদিন ধরে খাবার ও পানি সংকটে ভুগছে। ছবি: এএফপি
আফগান নাগরিকরা দীর্ঘদিন ধরে খাবার ও পানি সংকটে ভুগছে। ছবি: এএফপি

তিনি আরও বলেন, 'আমি আফ্রিকার দেশগুলোর পরিস্থিতির দিকে সুনির্দিষ্টভাবে নজর দিতে চাই। সেখানে সাবেক ঔপনিবেশিক ক্ষমতাগুলো জেনে বুঝে দশকের পর দশক অর্থনৈতিক ও কৃষি উন্নয়ন ঠেকিয়ে রেখেছে। এই নব্য-ঔপনিবেশিক অস্ত্রগুলো তারা এখনও ব্যবহার করছে এবং এসব দেশকে আরও বেশি পরিমাণে পরনির্ভর করে রেখেছে।'

 

Comments