নির্বাচনে এসে জাতীয় পার্টি গণতন্ত্রকে বাঁচিয়েছে: চুন্নু

‘আমি তো মনে করি, আমরা দেশের মানুষের জন্য গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা অক্ষুণ্ন রাখতে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে সঠিক কাজটি করেছি।’
নির্বাচনে এসে জাতীয় পার্টি গণতন্ত্রকে বাঁচিয়েছে: চুন্নু
জাতীয় পার্টি মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু | ছবি: টেলিভিশন থেকে নেওয়া

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে জাতীয় পার্টি গণতন্ত্রকে বাঁচিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু।

আজ রোববার দুপুরে বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

সবাই বলছে গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা এগিয়ে না নিয়ে জাতীয় পার্টি ধারাবাহিকতা নষ্ট করেছে—একজন গণমাধ্যমকর্মী দৃষ্টি আকর্ষণ করলে চুন্নু বলেন, 'এটা বিএনপির কথা, যারা নির্বাচনে আসেনি। আমরা নির্বাচনে না আসলে, দেশে নির্বাচন যদি না হতো, তাহলে কী হতো? সেই বিষয়টা চিন্তা করলে উত্তরটা পেয়ে যাবেন।'

তিনি বলেন, 'জাতীয় পার্টির ইতিহাস হলো, নির্বাচন বর্জন নয়। কারণ নির্বাচন ছাড়া সংসদীয় রাজনীতিতে ক্ষমতা অদল-বদলের আর কোনো সুযোগ নেই। বাংলাদেশে যদি নির্বাচন না হয় এবং আমার ধারণা, আমরা নির্বাচনে না গেলে, যদি নির্বাচন না হতো বা সম্ভাবনা তাই ছিল; তাহলে এখানে একটা অগণতান্ত্রিক পদ্ধতি কায়েম হওয়ার একটা সুযোগ ছিল। আমি তো মনে করি, আমরা দেশের মানুষের জন্য গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা অক্ষুণ্ন রাখতে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে সঠিক কাজটি করেছি।'

আপনারা ভোটে এসে গণতন্ত্র, সরকারকে বাঁচিয়েছেন নাকি নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়েছেন জানতে চাইলে গণমাধ্যমকর্মীদের জাপা মহাসচিব বলেন, 'আমরা মনে করি, গণতন্ত্রকে বাঁচিয়েছি।'

তিনি আরও বলেন, 'আশা করি, এ দেশের জনগণের যে আশা, সংসদে কথা বলা—সরকারের ত্রুটিগুলো ধরিয়ে দেওয়া, সরকারের দুঃশাসন, দুর্নীতি সম্পর্কে উচ্চ কণ্ঠে কথা বলা; গত সংসদে বলেছি, এই সংসদেও নিশ্চয়ই বলবো। জাতি আমাদের ওপর ভরসা রাখতে পারে।'

এর আগে জাতীয় পার্টির সংরক্ষিত দুই নারী আসনের প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন।

Comments

The Daily Star  | English

Cyclone disrupts 10,000 telecom towers, leaving millions out of mobile service

Power outage due to cyclone Remal has caused over 10,000 mobile towers or base transceiver stations (BTS) to go out of service, affecting the mobile and internet services of millions of people in the southern districts

1h ago