অপরাধ ও বিচার

ধর্ষণ মামলার এক আসামির সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ের অনুমতি সুপ্রিম কোর্টের

লালমনিরহাটে ধর্ষণ মামলার এক আসামির সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ের অনুমতি দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট। দুই পরিবারের সমঝোতার পরিপ্রেক্ষিতে দেশের সর্বোচ্চ আদালত বিরল এক আদেশে এই অনুমতি দিয়েছেন।
সুপ্রিম কোর্ট

লালমনিরহাটে ধর্ষণ মামলার এক আসামির সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ের অনুমতি দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট। দুই পরিবারের সমঝোতার পরিপ্রেক্ষিতে দেশের সর্বোচ্চ আদালত বিরল এক আদেশে এই অনুমতি দিয়েছেন।

এই মামলার আসামি রাকিবুজ্জামান এখন লালমনিরহাট কারাগারে আছেন। সুপ্রিম কোর্ট কারাগার কর্তৃপক্ষকে দেওয়া আদেশে রাকিবুজ্জামানের সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ের ব্যবস্থা করতে বলেছেন। সেই সঙ্গে আদেশ পাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে কারাগার কর্তৃপক্ষকে বিয়ের কাগজপত্র সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করতে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে আগামী ৪ ডিসেম্বর পরবর্তী আদেশের দিন ধার্য করেছেন আদালত।

দুটি পৃথক আবেদনের শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্চ এই আদেশ দিয়েছেন।

রাকিবুজ্জামানের আইনজীবী মো. ওজি উল্লাহ দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, গত বছরের ২৩ জুলাই লালমনিরহাটের আদিতমারী থেকে ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগ আছে রকিবুজ্জামানের বিরুদ্ধে।

চলতি বছরের ৮ এপ্রিল ওই কিশোরীর বাবা অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে রকিবুজ্জামানের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। পরদিন পুলিশ ওই কিশোরীকে উদ্ধার এবং আসামিকে গ্রেপ্তার করে। এর আগ পর্যন্ত তারা দুজন একসঙ্গে বসবাস করছিলেন। এর মধ্যে ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। তারা বিয়ের কাগজপত্রও তৈরি করেন। তবে পরে ওই কিশোরীর গর্ভপাত ঘটে।

এই মামলায় গত জুনে রকিবুজ্জামেনের জামিন মঞ্জুর করেন হাইকোর্ট। রাষ্ট্রপক্ষ এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে। আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের চেম্বার বিচারপতি হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে আপিল বিভাগে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠিয়ে দেন।

গতকাল ভিকটিমের বাবা আপিল বিভাগে দেওয়া স্টেটমেন্টে বলেন, দুই পরিবার তাদের বিয়ের ব্যাপারে সম্মত হয়েছে। রাকিবুজ্জামানের আইনজীবী ওজি উল্লাহ বলেন, বিয়ের অনুমতির জন্য আপিল বিভাগের কাছে অনুরোধ করেন ভিকটিমের বাবা।

আইনজীবী বলেন, বিষয়টি শুনানির পর আপিল বিভাগ এক বিরল আদেশে তাদের বিয়ের অনুমতি দেন।

Comments