পছন্দের শীর্ষে থাকা ৪ ল্যাপটপ

প্রযুক্তির ওপর ভর করে চলা পৃথিবীতে ল্যাপটপ হচ্ছে একটা জাদুর বাক্স। সহজে বহনযোগ্য বলে কর্মজীবনে, বিনোদনের ক্ষেত্রে কিংবা ওয়েব ব্রাউজিংয়ের জন্য খুবই দক্ষ এই যন্ত্রের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। তাই প্রতিনিয়ত বাজারে আসছে হাজারও ব্র্যান্ড ও মডেলের ল্যাপটপ। 
ছবি: সংগৃহীত

প্রযুক্তির ওপর ভর করে চলা পৃথিবীতে ল্যাপটপ হচ্ছে একটা জাদুর বাক্স। সহজে বহনযোগ্য বলে কর্মজীবনে, বিনোদনের ক্ষেত্রে কিংবা ওয়েব ব্রাউজিংয়ের জন্য খুবই দক্ষ এই যন্ত্রের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। তাই প্রতিনিয়ত বাজারে আসছে হাজারও ব্র্যান্ড ও মডেলের ল্যাপটপ। 

এতসব ব্র্যান্ডের ভিড়ে সর্বোচ্চ ব্যবহার উপযোগী ল্যাপটপটি বাছাই করা খুব কঠিন। ব্যবহারের ক্ষেত্র ও সুবিধার ওপর ভিত্তি করে প্রযুক্তিভিত্তিক সেরা কিছু প্লাটফর্ম এবং বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী ২০২২ সালে বাজারের সেরা ৪টি ল্যাপটপ নিয়ে আলোচনা করা হবে। 

ছবি: দ্য ভার্জ

সামগ্রিকভাবে পছন্দের শর্ষে অ্যাপল ম্যাক-বুক এয়ার

বিশ্বসেরা মোবাইল ফোন কিংবা ল্যাপটপের তালিকায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানকে উপেক্ষা করা প্রায় অসম্ভব। সামগ্রিক দিক বিবেচনায় চলতি বছর অধিকাংশ বিশেষজ্ঞ ও নিউজ আউটলেটগুলো অ্যাপলের এম-১ প্রসেসর চালিত ম্যাক-বুক এয়ারকেই সবার পছন্দের শীর্ষে স্থান দিয়েছে। দাম, প্রসেসর, নকশা, যন্ত্রাংশ, সুবিধা-অসুবিধাগুলো বিবেচনায় রাখা হয়েছে।

অ্যাপল ব্যবহারকারীদের প্রথম পছন্দ এটির অপারেটিং সিস্টেম। ম্যাক-বুক হিসেবে খুবই সহনশীল দামের এই ডিভাইসের প্রসেসর ফটো ও ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারকে সাপোর্ট করে। পাশাপাশি কিছু গেমস খেললেও ল্যাপটপটি দীর্ঘদিন ধরে দ্রুতগতির সেবা দিয়ে পারে। এম-১ প্রসেসরের আরেকটা দুর্দান্ত সুবিধা হচ্ছে, এর মাধ্যমে ম্যাক-বুক এয়ার, ম্যাক ওএসে আইফোন এবং আইপ্যাড-এর অ্যাপগুলো চালাতে সক্ষম।

দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ও নির্ভরযোগ্য স্থায়িত্বের সুবিধার ডিভাইসটিতে আছে ২৫০০ গুণ ১৬০০ স্ক্রিন, টাচ আইডি, ৭২০ পিক্সেলের ওয়েবক্যাম, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, সিজর-সুইচ কিবোর্ড ও ৮-১০ ঘণ্টার ব্যাটারি সাপোর্ট। এম-১ প্রসেসর চালিত একটি ১৩ দশমিক ৩ ইঞ্চির রেটিনা ডিসপ্লে, ৮ জিবি র‍্যাম ও ২৫৬ জিবি স্টোরেজের একটি ল্যাপটপ পাওয়া যাবে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২৫০ ডলারের মধ্যে। 

দামের তারতম্য অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন স্থানে এর দাম পড়তে পারে ১ লাখ ৫ হাজার থেকে ১ লাখ ১৫ হাজার পর্যন্ত। 

ছবি: দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস

নির্মাতাদের পছন্দ: অ্যাপল ম্যাক-বুক প্রো (১৬ ইঞ্চি)

এই মডেলটিকে বলা হয় অ্যাপলের এযাবৎকালের সেরা আবিষ্কার। দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসের একটি প্রতিবেদনে তাদের পরীক্ষিত সবচেয়ে দ্রুতগতির প্রসেসর হিসেবে ১৬.২ ইঞ্চির এই ম্যাকবুকের কথা বলেছে। নির্মাতাদের কাছে ডেস্কটপের বিকল্প হিসেবে কিংবা যেসব ফটোগ্রাফার ও ভিডিওগ্রাফারকে সব সময় ডিভাইস বহনের দরকার হয় তাদের কাছে এখন পর্যন্ত সেরা পছন্দ এই ল্যাপটপটি।

দুর্দান্ত এই মাল্টিমিডিয়া ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে এম১ প্রো-প্রসেসর। এইচডিআর কন্টেন্ট চালানোর জন্যে ১ হাজার নীটে পৌঁছানোর সুবিধাসহ দুর্দান্ত ডিসপ্লে, দ্রুতগতি এবং দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারি সাপোর্টকে এই যন্ত্রটির সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হিসেবে মনে করা হয়। এ ছাড়া আছে কালার অ্যাকুরেসি, ফোরকে স্ক্রিন ডিসপ্লে, বিল্ট-ইন স্পিকার, এনকোডিং, প্লেব্যাক ও এক্সপোর্ট সময়।

অবিশ্বাস্য পারফরম্যান্স নিশ্চিতের মাধ্যমে প্রফেশনাল নির্মাতাদের কাছে আস্থা অর্জন করে এই ডিভাইসটি এখন অ্যাপলের অন্যতম বহুল বিক্রি হওয়া একটি ল্যাপটপ। দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর মতে বিশ্ববাজারে এই ডিভাইসটি প্রায় ২ হাজার ৫০০ ডলারের মধ্যে পড়বে। কনফিগারেশনের তারতম্য অনুযায়ী দেশের বাজার এই ডিভাইসটি পাওয়া যাবে ২ লাখ ৫০ হাজার থেকে ২ লাখ ৭০ হাজার টাকার মধ্যে।

ছবি: ডেল

সাশ্রয়ী মূল্যে: ডেল ইন্সপিরেশন-১৪

মাঝারি মাত্রার কাজ ও সর্বোচ্চ সুবিধা প্রাপ্তির দিকগুলো বিবেচনা করে কম দামি ল্যাপটপের তালিকায় অন্যতম প্রধান পছন্দ হিসেবে আছে ডেল ইন্সপিরেশন-১৪ ডিভাইসটি। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন বিশ্বের প্রধান সারির ৭টি উইন্ডোজ ল্যাপটপ ও ক্রোমবুকের ওপর পরীক্ষা করে এই ডিভাইসটিকে সবার ওপরে স্থান দিয়েছে।

উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ১১ হোম সম্বলিত এই ডিভাইসটিতে মিলবে পাওয়ার, ব্যাটারি, ব্যবহার ও ফিচারের মেলবন্ধন। ১৪ ইঞ্চির ১৯২০ গুণ ১০৮০ ডিসপ্লে, অ্যান্টি গ্লেয়ার, দ্রুত গতির ২৫৬ জিবি এসএসডি, ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার, ব্যবহার সহায়ক কিবোর্ড, একটি শক্তিশালী ইউএসবি সি পোর্ট ও ৭২০ পিক্সেল ওয়েব ক্যামেরাসহ বেশকিছু সুবিধা আছে। 

প্রফেশনালদের জন্যে এই ডিভাইসটি খুব একটা সুবিধাজনক না হলেও শিক্ষার্থী কিংবা দৈনন্দিন ব্যবহার কিংবা অফিশিয়াল কাজের জন্যে এটা একটা দুর্দান্ত পছন্দ হতে পারে। বিশ্ববাজারে ৫০০ ডলার থেকে শুরু হয়েছে এর দাম। দেশের বাজারে এই ডেল ইন্সপিরেশনের বিভিন্ন মডেলের ল্যাপটপ মিলবে ৫০ হাজার থেকে ৭৫ হাজারের মধ্যে।

ছবি: রগ আসুস

গেমারদের পছন্দ: আসুস রগ জেফিরাস জি১৪

সাধারণ বা প্রফেশনাল ব্যবহারকারীদের চেয়ে শক্তিশালী একটি ডিভাইস বেশি পছন্দ করে মূলধারার গেমাররা। ফোরকে ডিসপ্লেসহ সেরা হার্ডওয়ারের একটি ল্যাপটপ কিনতে হলে খরচ করতে হবে মোটা অংকের অর্থ। ফোর্বসের তথ্যমতে, ২০২২ সালে আসুস ব্রান্ডের রগ জেফিরাস জি১৪'কে রয়েছে সব থেকে এগিয়ে। ম্যাগাজিনটির দাবি, পৃথিবীর সব ধরনের গেম এই ল্যাপটপটি তার ১২০ হার্জ প্যানেলের সাহায্যে পরিচালনা করতে সক্ষম।
  
ডিভাইসটিতে আছে নতুন প্রজন্মের এএমডি রাইজেন ৬৯০০ এইচএস, ৮ কোর এবং ১৬টি থ্রেড, ১৬ জিবির উচ্চ গতির ডিডিআর৫ মেমরি এবং চমৎকার রেডিওন ৬৭০০এস মোবাইল গ্রাফিক্স চিপ, ২৫৬০ গুণ ১৬০০ আপগ্রেডেড ডিসপ্লে, ১০ ঘণ্টার বেশি ব্যাটারি সাপোর্ট। 

বিশ্ববাজারে এই দুর্দান্ত ল্যাপটপটি পাওয়া যাবে ১ হাজার ৫৫০ থেকে ১ হাজার ৬৫০ ডলারের মধ্যে। দেশের বাজারে এর মূল্য ১ লাখ ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ ৭০ হাজারের মধ্যে। 

তথ্যসূত্র: দ্য ভার্জ, সিএনএন, দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস ও ফোর্বস

 

Comments

The Daily Star  | English
Onion price  Tk204 per kg | Onion prices surge in Dhaka after India’s export ban extension

Onion prices surge for supply squeeze after India’s export ban extension

Retailers were selling the homegrown variety of onion at Tk 200 a kg at Karwan Bazar today, compared with Tk 130 on Thursday

2h ago